একুশ শতক এর পরিক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে। ফেসবুকে লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন।

মার্কিন সিনেটর জন ম্যাককেইন আর নেই

যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী সিনেটর রিপাবলিকান পার্টির প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জন ম্যাককেইন আর নেই।

স্থানীয় সময় শনিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। ভিয়েতনাম যুদ্ধের সৈনিক ম্যাককেইন ক্যান্সারে ভুগছিলেন। তার বয়স হয়েছিল ৮১ বছর।

বিবিসি জানিয়েছে, রোববার তার দপ্তর থেকে এক সংক্ষিপ্ত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, শনিবার ম্যাককেইন যখন শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন, তখন পরিবারের সদস্যরা তার পাশেই ছিলেন।

গত একবছর ধরে মস্তিষ্কের ক্যান্সারে ভুগছিলেন বর্ষীয়ান এই রাজনীতিক। ২০১৭ সালের জুলাইয়ে ম্যাককেইনের মস্তিষ্কে টিউমার ধরা পড়ে। তখন থেকেই তার চিকিৎসা চলছিল। শুক্রবার তার পরিবার জানায়, ম্যাককেইন আর চিকিৎসা না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

অর্ধশতাব্দীরও বেশি সময় ধরে যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন ম্যাককেইন। তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে আরিজোনার সিনেটরের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ২০০৮ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ছিলেন তিনি। তবে নির্বাচনে তিনি প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার কাছে হেরে যান।

বর্তমান রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের একজন কড়া সমালোচক ছিলেন ম্যাককে্ইন । প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিভিন্ন সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন তিনি প্রকাশ্যেই।

ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় ম্যাককেইন ছিলেন যুদ্ধ বিমানের পাইলট। গুলিতে তার বিমান ভূপাতিত হলে তিনি ধরা পড়েন। এরপর পাঁচ বছরেরও বেশি সময় যুদ্ধবন্দি হিসেবে কারাগারে ছিলেন তিনি। তখন নির্যাতনেরও শিকার হয়েছিলেন ম্যাককেইন।

ম্যাককেইনের মৃত্যুর পর তার মেয়ে মেগান আবেগঘন এক টুইটার বার্তায় লিখেছেন, বাকি জীবন তিনি বাবাকে অনুসরণ করে বাবার ভালোবাসা ও প্রত্যাশা নিয়ে কাটাতে চান। তিনি বলেন, ‘বাবাকে ছাড়া আসছে দিনগুলো আমার জন্য আগের মতো থাকবে না। কিন্তু সেই দিনগুলোও ভালো হবে, ভালোবাসা ও প্রাণে ভরপুর থাকবে। কেননা তিনি এক চমৎকার জীবনযাপনের উদাহরণ রেখে গেছেন আমাদের সামনে।’

ম্যাককেইনের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ার অনেকেই শোক প্রকাশ ও তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের একজন কড়া সমালোচক হলেও ম্যাককেইনের মৃত্যুর পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এক টুইটে বলেন, ‘সিনেটর জন ম্যাককেইনের পরিবারের প্রতি আমার গভীর সমবেদনা ও শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। আপনাদের জন্য আমাদের ভালোবাসা ও প্রার্থনা রয়েছে।’

২০০৮ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ম্যাককেইনের প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বারাক ওবামা জয়ী হন। ম্যাককেইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বারাক ওবামা বলেন, ‘ম্যাককেইন যা করেছেন, তা খুব কম লোকই করেছেন। তার মতো সাহস খুব কম লোকই দেখাতে পেরেছেন। রাজনৈতিক মতপার্থক্য থাকলেও যে আদর্শের জন্য আমেরিকান ও অভিবাসী প্রজন্মের লড়াই, অগ্রযাত্রা ও ত্যাগ স্বীকার, তাতে তাদের দুজনের বিশ্বস্ততা এক অনন্য উচ্চতায় ছিল।’

ওই নির্বাচনে ম্যাককেইনের রানিং মেট ছিলেন সারাহ পলিন। তিনি ম্যাককেইনের সঙ্গে তার ছবি পোস্ট করে টুইটারে লিখেছেন, ‘বিশ্ব একজন প্রকৃত আমেরিকানকে হারাল।’

সর্বশেষ আপডেট: ২৬ আগস্ট ২০১৮, ১৩:৪৪
অনলাইন ডেস্ক

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে একুশ শতক

সর্বশেষ আপডেট

বিনোদন